top of page
  • Writer's pictureMostafizur Rahman

এস্টেট প্লান ২০২৪ (পর্ব-১২৫)

এস্টেট প্লান হল কোন ব্যক্তির যাবতীয় প্রপার্টি, মালিকানাধীন সম্পদ, ব্যাংক হিসাব ইত্যাদি তিনি মারা গেলে কিভাবে ব্যবস্থাপনা হবে তার বিশদ বিবরণ। অন্যভাবে বলা যায়, কোন ব্যক্তির মোট সম্পদ এবং দায়, তার অনুপস্থিতিতে কিভাবে বণ্টন হবে তার একটি আইনগত ডকুমেন্ট হল এস্টেট প্লান।

সাধারনত ব্যক্তিগত/ স্বতন্ত্র এস্টেট বলতে বুঝানো হয় –

  • প্রপার্টি

  • বিনিয়োগ

  • যানবাহন

  • এন্টিকস

  • লাইফ ইনস্যুরেন্স

  • পেনশন

  • সঞ্চয়

  • দায়। ইত্যাদি

সাধারণত তিন ভাবে এস্টেট প্লান করা যেতে পারে-


১) গিফট এবং ট্রাস্টঃ কোন ব্যক্তি জীবিত থাকা অবস্থায় তার পরিবারের সদস্যদের তার সম্পদ গিফট করতে পারে। অন্যভাবে তিনি ব্যক্তি জীবিত থাকা অবস্থায় ট্রাস্ট গঠন করে, তার তার সম্পদ তার পরিবারের সদস্যদের মধ্যে বণ্টন করতে পারে।


২) চ্যারিটি ডোনেশনঃ চ্যারিটেবল ডোনেশন হল এস্টেট প্লান এর আরেকটি উপায় এবং এর মাধ্যমে inheritance tax bill কমানো যায়।


৩) উইল এবং টেস্টামেন্টঃ উইল এবং টেস্টামেন্ট হল এস্টেট প্লান এর গুরুত্বপূর্ণ লিগাল। ফাইনাল উইল এবং টেস্টামেন্ট কোন ব্যক্তি সম্পদ এবং দায় কিভাবে বণ্টন হবে তার বিস্তারিত বর্ণনা কোন ব্যক্তি সম্পদ এবং দায় কিভাবে বণ্টন হবে তার বিস্তারিত বর্ণনা এবং এক্সিকিউটরদের নাম থাকবে। উইলকৃত ব্যক্তি মারা যাবার পর, এক্সিকিউটরগণ তার যাবতীয় সম্পদ এর নিরাপত্তা দিবে এবং উইল অনুযায়ী উত্তরাধিকারদের নিকট সম্পদ বণ্টন করবে।

  

একটি উইলে কি কি থাকেঃ

একটি উইল পরিকল্পনা এবং লেখার সময়, যে সব বিষয় অবশ্যই উল্লেখ করতে হবে-

  • উইল দ্বারা কারা উপকৃত হবে

  • নির্দিষ্ট কোন ব্যাক্তিকে নির্দিষ্ট কোন সম্পদ গিফট করতে চান কিনা।

  •  ‘residue’ সম্পদ কে পাবে অথবা কথায় যাবে। ‘residue’ বলতে কোন ব্যক্তির মৃত্যুর পর তার দাফন, অ্যাডমিন খরচ, ট্যাক্স ইত্যাদি খরচ এর পর যে সম্পদ অবশিষ্ট থাকবে।

  • উইলকৃত ব্যাক্তির আগে যদি কোন উত্তরাধিকার মারা যায়।

  • চ্যারিটেবল প্রতিষ্ঠানে কোন সম্পদ দান করতে চান কিনা।

  • উইলকৃত ব্যাক্তির মৃত্যুর পর প্রাথমিকভাবে কারা তার সম্পদ পরিচালনা করবে। (এক্সিকিউটর)

 

কিভাবে উইল তৈরি করা যায় -

কোন ব্যক্তি মৃত্যুর পর তার সম্পদ এবং দায় কিভাবে বণ্টন হবে তার বিস্তারিত বর্ণনা উইলে লিখিত এবং সাক্ষরকৃত থাকবে। এই  উইল বিভিন্নভাবে তৈরি করা যায়।


# লয়ার এর মাধ্যমে উইল তৈরিঃ

উইল তৈরি করার সবচেয়ে উত্তম পদ্ধতি হল একজন অভিজ্ঞ সলিসিটর অথবা চার্টার লিগাল এক্সিকিউটিভ এর মাধ্যমে উইল তৈরি করা। লয়ার একটি নির্দিষ্ট ফি এর বিনিময়ে উইল তৈরি করতে সহায়তা এবং পরামর্শ দিবে। সলিসিটর অথবা চার্টার লিগাল এক্সিকিউটিভ এর মাধ্যমে উইল তৈরি করার সুবিধা হল, সলিসিটর অথবা চার্টার লিগাল এক্সিকিউটিভ inheritance tax bill সম্পর্কে উত্তম পরামর্শ দিবে। এছাড়া উইল তৈরি সম্পন্ন হলে, সলিসিটর অথবা চার্টার লিগাল এক্সিকিউটিভ নির্দিষ্ট কিছু ফি বিনিময়ে উইল নিরাপদ স্থানে সংরক্ষণ করবে।  


# ফ্রি উইল মান্থ

প্রতি বছর মার্চ এবং অক্টোবর এ বিভিন্ন চ্যারিটি সংগঠন অভিজ্ঞ সলিসিটরদের মাধ্যমে বিলাতের বিভিন্ন স্থানে ক্যাম্পেইন পরিচালনা করে। এই ক্যাম্পেইনে ৫৫ বছর ঊর্ধ্ব ব্যক্তিবর্গ বিনামূল্যে উইল তৈরি এবং আপডেট করতে পারবেন।


এছাড়াও প্রতি বছর নভেম্বর মাসে বিভিন্ন চ্যারিটি সংগঠন তাদের প্রতিষ্ঠানে কিছু চ্যারিটি ডোনেশন এর বিনিময়ে অভিজ্ঞ সলিসিটরদের মাধ্যমে সব বয়সী ব্যক্তিবর্গকে উইল তৈরি এবং আপডেট করতে সহায়তা করে।


# ব্যাংক এর মাধ্যমে উইল তৈরিঃ

বিভিন্ন ব্যাংক উইল তৈরি করতে এবং এস্টেট প্লান এর পরামর্শ দিয়ে থাকে।


উইল তৈরি করা না হলে কি হবেঃ

কোন ব্যক্তি উইল তৈরি না করে মৃত্যুবরণ করলে তিনি ‘intestate’ হিসেবে মৃত্যুবরণ করেছেন বলে গণ্য হবেন। এই পরিস্থিতিতে তার সম্পদসমূহ Intestacy নিয়ম অনুযায়ী বণ্টন হবে।

Intestacy নিয়ম-


  • কোন ব্যক্তি যদি স্ত্রী/সিভিল পার্টনার এবং সন্তান রেখে মারা যায়। তবে তার স্ত্রী মৃত ব্যাক্তির সকল ব্যক্তিগত সামগ্রী এবং তার সম্পদের অর্ধেক পাবে। এবং তার সন্তানগণ তার সম্পদের বাকি অর্ধেক পাবে।

  • কোন ব্যক্তি যদি স্ত্রী/সিভিল পার্টনার এবং নিঃসন্তান অবস্থায় মারা যায়। তবে তার স্ত্রী মৃত ব্যাক্তির সকল ব্যক্তিগত সামগ্রী এবং তার সকল সম্পদের মালিকানা পাবে।

  • কোন ব্যক্তি যদি কেবলমাত্র সন্তান রেখে মারা যায়। তবে তার সন্তানগণ মৃত ব্যাক্তির সকল ব্যক্তিগত সামগ্রী এবং তার সকল সম্পদের মালিকানা পাবে।

  • কোন ব্যক্তি যদি পার্টনার থাকে এবং তিনি যদি তাকে বিয়ে অথবা সিভিল পার্টনারশিপ না করেন। তবে তার মৃত্যুর পর তার পার্টনার, মৃত ব্যাক্তির সম্পদের কোন অংশ পাবে না।  

  • কোন ব্যক্তি যদি বিপত্নীক  এবং নিঃসন্তান অবস্থায় মারা যায়। তখন তার সম্পদসমূহ প্রথমে তার পিতা-মাতা, এরপর তার ভাই-বোন এবং আত্মীয় স্বজন এর মধ্যে বণ্টন হবে। এখন সম্পদ বণ্টনের জন্য কোন জীবিত আত্মীয় স্বজন পাওয়া না গেলে, তার সম্পদসমুহ ক্রাউন(Crown) এর নিকট হস্তান্তর হবে।

 

ট্রাস্ট তৈরি করা -

কোন ব্যক্তির যদি অপ্রাপ্ত বয়স্ক সন্তান অথবা প্রতিবন্ধী সন্তান থাকে। তার অনুপস্থিতিতে অপ্রাপ্ত বয়স্ক সন্তানদের পক্ষ হয়ে তার সম্পদ পরিচালনা করার জন্য   ট্রাস্ট তৈরি করতে পারেন। এই ট্রাস্ট এ কমপক্ষে দুজন ট্রাস্ট সদস্য অথবা এক্সিকিউটর থাকবে। যারা মৃত ব্যক্তির অপ্রাপ্ত বয়স্ক সন্তান অথবা প্রতিবন্ধী সন্তানদের পক্ষে মৃত ব্যক্তির সম্পদ পরিচালনা করবে। ট্রাস্ট গঠন করার পূর্বে অবশ্যই একজন অভিজ্ঞ স্পেশালিষ্ট সলিসিটর এর পরামর্শ নেয়া প্রয়োজন।

একটি ট্রাস্টটে তিনজন প্রধান ব্যাক্তি থাকে-


১) The settlor: একজন সেটর উপকারভোগীর জন্য ট্রাস্ট গঠন করেন এবং তিনি পাওয়ার অফ এটর্নি এর মাধ্যমে ট্রাস্ট এর যাবতীয় দায়িত্ব ট্রাস্টীদের নিকট প্রদান করে।

২) The Trustee:  ট্রাস্টীগণ একটি ট্রাস্ট এর লিগাল ওউনার। ট্রাস্টীগণ উপকারভোগীর পক্ষে ট্রাস্ট এর যাবতীয় সম্পদ এবং বিনিয়োগ পরিচালনা করে।  

৩) The Beneficiary: ট্রাস্ট হতে যিনি যাবতীয় উপকার পেয়ে থাকেন।

প্রপার্টি মার্কেট এবং প্রপার্টি মর্গেজ সম্পর্কে আপনাদের কোন মতামত বা জিজ্ঞাসা থাকলে নিন্মের ই-মেইল অথবা টেলিফোন নম্বরে যোগাযোগ করতে পারেন।    

Tel: 02080502478  

15 views0 comments

תגובות


bottom of page